২রা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, শনিবার, রাত ১১:৩৩
ব্রেকিংনিউজ :

পরকীয়ার টানে সন্তানসহ প্রেমিকের হাত ধরে পলায়ন

বিশেষ সংবাদদাতা
  • আপডেট : আগস্ট, ৩০, ২০২১, ৫:৪০ পূর্বাহ্ণ
  • ২৬৬ ০৯ বার দেখা হয়েছে
পরকীয়ার টানে সন্তানসহ প্রেমিকের হাত ধরে পলায়ন
প্রতীকী ছবি

পরকীয়ার টানে চার বছরের এক শিশুসন্তানসহ প্রেমিকের হাত ধরে পালিয়েছেন জান্নাতুল ফেরদাউস নামের এক নারী। এ ঘটনাটি ঘটেছে লক্ষ্মীপুরে সদর উপজেলার দক্ষিণ হামছাদী ইউনিয়নের হেতিমপুর গ্রামে। এ ঘটনায় একটি মামলা করেছেন ওই নারীর স্বামী রাসেল মাহমুদ রোমান।

 

এ নিয়ে প্রেমিকের সঙ্গে দুবার পালালেন ওই নারী। প্রথমবার একা পালালেও এবার সঙ্গে তার চার বছর বয়সী মেয়েকে নিয়ে গেছেন।

 

পুলিশ সূত্র জানায়, গত ১৪ জুন শিশুসন্তানকে নিয়ে জান্নাতুল ফেরদাউস প্রেমিক সাইফুল ইসলামের সঙ্গে দ্বিতীয়বারের মতো পালিয়ে যান। এ ঘটনায় স্বামী রোমান সদর মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। তবে দেড় মাস পেরিয়ে গেলেও মেয়েকে না পেয়ে রোববার (২৯ আগস্ট) দুপুরে লক্ষ্মীপুর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (সদর) আদালতে জান্নাতুল ফেরদাউস, প্রেমিক সাইফুল ও সহযোগী কাওছার আহম্মেদকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন রোমান। অভিযুক্তরা সদর উপজেলার দক্ষিণ হামছাদী ইউনিয়নের হেতিমপুর গ্রামের বাসিন্দা।

 

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ব্যবসায়ী রোমান ও জান্নাতুল ফেরদাউসের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। পাঁচ বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। একবছর পরই তাদের সংসারে নতুন অতিথি হিসেবে রাফার জন্ম হয়। ব্যবসার কাজে রোমান রাজধানীতেই থাকতেন। এ সুযোগে জান্নাতুল ফেরদাউস স্বামীর বন্ধু সাইফুল ইসলামের সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে তোলেন। স্থানীয়দের কাছে সাইফুল ও জান্নাতুল ফেরদাউস হাতেনাতে আটক হন। গত ৪ এপ্রিল শিশু মেয়েটিকে রেখে জান্নাতুল প্রেমিক সাইফুলের সঙ্গে পালিয়ে যান। এ সময় তাদের বিয়েও হয়। পরে সালিশি বৈঠকের মাধ্যমে সন্তানের কথা চিন্তা করে জান্নাতুল ফেরদাউসকে ফের ঘরে তোলেন রোমান। দুই মাসের মাথায় গত ১৪ জুন ফের ওই নারী প্রেমিকের হাত ধরে পালিয়ে যান।

 

মামলার বাদী রাসেল মাহমুদ রোমান বলেন, অভিযুক্ত সাইফুল আমার ছোটবেলার বন্ধু। সম্পর্কেও চাচা-ভাতিজা। আমার স্ত্রীকে পালিয়ে যেতে কাওছার সহযোগিতা করেছে। তারা পালিয়ে যাওয়ার সময় আমার মেয়েকে নিয়ে গেছে। সন্তানকে অক্ষত অবস্থায় ফিরে পেতে প্রশাসনের সহযোগিতা চেয়েছেন রোমান।

 

এ বিষয়ে বাদীর আইনজীবী লুৎফুর রহমান গাজী বলেন, মামলাটি আদালতের বিচারক রায়হান চৌধুরী আমলে নিয়েছেন। এটি তদন্ত করার জন্য জেলা গোয়েন্দা পুলিশকে (ডিবি) নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

 

 

সংবাদটি শেয়ার করে সবাই কে দেখার সুযোগ করে দিন

এ বিভাগের আরো খবর
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত  © ২০২১ সবার কন্ঠ
Design & Developed BY:Host cell BD
ThemesCell